সিরাজদিখানের তেঘরিয়া যুব সংঘের সংবাদ সম্মলন

আরিফ হোসেন হারিছ সিরাজদিখান থেকে
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩১ জানুয়ারি, ২০২১
  • ৪৩৩ বার পঠিত

ঢাকা জেলার নবাবগঞ্জ আগলা প্রগতি সংঘের বিরুদ্ধে প্রতারণার অভিযোগে মুন্সীগঞ্জের সিরাজদিখানের তেঘরিয়া যুব সংঘের সভাপতি সংবাদ সম্মেলন করেছেন। রোববার ৩১ জানুয়ারী বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে সিরাজদিখান পে্রসক্লাবে এই সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।
সংবাদ সম্মেলনে তেঘরিয়া যুব সংঘের সভাপতি শেখ শহিদুল্লাহ সোহেল তার বক্তব্যে বলেন, আগলা প্রগতি সংঘের আয়োজনে কবি কায়কোবাদ স্মৃতি ব্যাডমিটন টুর্নামেন্ট অনুষ্ঠিত হয়। ২৭ জানুয়ারী নক আউট পদ্ধতির প্রথম রাউন্ডের খেলায় আগলা কায়কোবাদ মাঠে তেঘরিয়া যুব সংঘ, মিরপুর পল্লবিকে হারিয় সেমি ফাইনাল উত্তীর্ণ হয়। ২৮ জানুয়ারী তাদের জানানো হয়, ৩০ জানুয়ারী সেমি ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত হবে। তখন তেঘরিয়া যুব সংঘের সভাপতি খেলাটি পিছিয়ে দেওয়ার দাবী জানান। ৫ দিন আগে জানানোর কথা থাকলেও ২ দিন আগে জানায় তারা। তাতে করে তেঘরিয়ার খেলায়ার আসতে পারেনি। আগলা প্রগতি সংঘের প্রতারণার জন্য এ কাজ করেছে। শুধু তাই নয় সেমি ফাইনাল খেলায় আমাদের ক্লাবের নাম ব্যবহার করে অন্য ২ জন খেলোয়ারদের দিয়ে খেলা পরিচালনা করে। এতে আমাদের সম্মানহানী ঘটে। আমরা নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকতার্কে অবহিত করেছি। প্রয়োজনে আমরা আইনের মাধ্যমে দেখবো। তবে তাদের এই প্রতারণার প্রতিবাদে এর জন্য আজকের এই সংবাদ সম্মেলন করছি। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, তেঘরিয়া যুব সংঘের সাধারণ সম্পাদক শাহালম আসাদ, ক্রীড়া সম্পাদক নবী হোসেন নিরব, প্রচার সম্পাদক সবুজ কাজী, সহ-ক্রীড়া সম্পাদক শেখ ইউনুছ প্রমুখ।
এ বিষয়ে নবাবগঞ্জ আগলা যুব সংঘের ক্রীড়া সম্পাদক খালেদ আল মামুন জানান, আমরা তাদেরকে ট্রাইসিট দিয়েছি সেখান সকল নিয়মাবলীসহ উলে্লখ আছে, কমিটির সিদ্ধান্তই চুরান্ত। তবুও আমরা সেমি ফাইনালে তাদের ও প্রতিদ্বদ্বি দল কতমতলীর সাথে আলোচনা করেছি। তারিখ পরিবর্তন করা সম্ভব হয়নি। তাছাড়া অতিথিদের দেওয়া সময়ও পরিবর্তন করা যায়নি। তাদেরকে বলেছি আগর খেলোয়াররা না আসলে অন্য খেলেয়ার নিয়ে আসতে, তারা না আশায় ওয়াকওভার পেয়েছে উপস্থিত দল। অতিথি ও দর্শকদের সন্মানে প্রীতি ম্যাচ খেলা হয়েছে। আমাদের ক্লাবের একটা সুনাম আছে। তারা না আসায় আমাদের অপমান ও বেগ পাইতে হইছে। তবে তাদের ক্লাবের নাম ও কদমতলীর নামই খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
নবাবগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এইচ এম সালাউদ্দিন মঞ্জু বলেন, তেঘরিয়া সংঘের লোকজন এসেছিলো। আমি তাদেরকে লিখিত ভাবে জানাতে বলেছি। তারা অভিযোগ দিলে তদন্ত সাপেক্ষ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর