রাজশাহীর বাগমারায় ছোটকয়ায় ১০ বছরের শিশুকে ধর্ষণ মামলায় গ্রেপ্তার ১

আকাশ সরকার
  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ৩৫২ বার পঠিত

 

আকাশ সরকারঃ

রাজশাহী বাগমারা উপজেলার বড় বিহানালীর ছোটকয়া পঞ্চম শ্রেণির দশ বছরের এক শিক্ষার্থী ধর্ষণের শিকার হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় গতকাল শুক্রবার সন্ধ্যায় শিক্ষার্থীর বাবা বাদী হয়ে থানায় মামলা করেছেন। মামলার একমাত্র আসামিকে পুলিশ গ্রেপ্তারও করেছে। আজ শনিবার তাঁকে আদালতে মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

গ্রেপ্তার ব্যক্তির নাম মো. ফজেল (৫৫)। পিতা মৃত: তজের আলী। গ্রেপ্তারকৃত আসামী ভুক্তভোগীর ফুফা ও বড়আব্বা হন। মামলার এজাহার ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, ওই শিক্ষার্থী দরিদ্র পরিবারের সন্তান। মেয়ের মা প্রবাসী, মেয়ের বাবা দিন মজুর, বাড়িতে অভিভাবক কেউ না থাকায় মো. ফজেল শিশুটিকে বাসায় ডেকে নিয়ে ধর্ষণ করেন। এ ঘটনা কাউকে জানালে হত্যা করা হবে বলে শিশুটিকে হুমকি দেওয়া হয়।

ওই শিক্ষার্থী কান্নাকাটি করে অসুস্থ হয়ে পড়লে স্থানীয়রা সেখানে গিয়ে উদ্ধার করে চাচা-চাচির মাধ্যমে বাবা-মাকে জানায়। পরে পরিবারের সদস্যরা এলাকার অন্যদের জানান।

এর পরে, স্থানীয় ব্যক্তিবর্গ ও ৪ নং বড়বিহানালী ইউপি চেয়ারম্যান জনাব মাহমুদুর রহমান মিলন এর পরামর্শে শিক্ষার্থীর পরিবারের বিষয়টি পুলিশকে জানায়। এর পরপরই শিক্ষার্থীর বাবা বাদী হয়ে শুক্রবার সন্ধ্যায় থানায় একটি মামলা করেন। সন্ধ্যার দিকে পুলিশ গিয়ে অভিযুক্ত মো. ফজেল কে একই গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে থেকে আটক করে।

এ নিয়ে অত্র ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদুর রহমান মিলন বলেন, গতকাল (শুক্রবার) ৪টার দিকে মেয়ের বাবা আমার বাসায় আসেন, কান্নাকাটি করে এবং বলেন আমার মেয়ের সাথে অন্যায় কাজ করা হয়েছে। পরে চেয়ারম্যান উপজেলা নিবার্হী অফিসার শরিফ আহম্মেদ কে অবহিতকরণের মাধ্যমে পুলিশকে জানান। তিনি আশা করেন, পুলিশ-প্রশাসন ঘটনা সুষ্ঠু তদন্ত সাপেক্ষে যথার্থ ব্যবস্থা নিবেন এবং ভুক্তভোগী পরিবারে নিরাপত্তা নিশ্চিত করবে।

স্থানীয় বাসিন্দা ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সদস্য ইসমাইল হোসেন জানান, মো. ফজেল শহর ও বিভিন্ন জায়গা থেকে পতিতা নিয়ে এসে কুকর্ম তথা অবৈধ নারী ব্যবসায় করতেন।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, এর আগেও তার পরিবারের নানা নির্যাতনে দায়ে ছেলে বউ এর দায়েরকৃত মামলায় জেলহাজত খাটেন। জানা যায় মামলাটি এখনো চলমান রয়েছে।

বাগমারা থানার (ভারপ্রাপ্ত) কর্মকর্তা ওসি মোস্তাক আহম্মেদ বলেন, ওই শিক্ষার্থীকে স্বাস্থ্য পরীক্ষা ও চিকিৎসার জন্য রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ওসিসিতে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্তকে তাঁর নিজের এলাকা থেকেই গ্রেপ্তার করা হয়েছে। শিক্ষার্থীর বাবার দায়ের করা নারী ও শিশু নির্যাতন মামলায় আসামিকে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে এবং তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর