আ.লীগের ষড়যন্ত্রে দায়ী করা হয় বিএনপি-জামায়াতকে: এমপি হারুন

Reporter Name
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২১ অক্টোবর, ২০২১
  • ২৬৩ বার পঠিত

ফেরদৌস সিহানুক শান্ত চাঁপাইনবাবগঞ্জঃ

আওয়ামীলীগ সরকারের অধীনে বাংলাদেশে কোন ধর্মের মানুষই শান্তিতে নেই। সাম্প্রতিক সময়ে যা প্রমাণিত। কারন সরকারের উদাসীনতা ও দায়িত্বশীলতার অভাবে দেশে বর্তমানে সব ধর্মের লোকজনের মাঝে আতঙ্ক কাজ করছে। আ.লীগ সরকার যখনই ক্ষমতায় আসে ইসলামিক মাহফিল বন্ধ করে দেয়া হয়। কয়েকদিন আগে উদ্দেশ্যমূলকভাবে কুমিল্লায় একটি মন্দিরে ভাংচুর করা হয়। অথচ অপবাদ দেয়া হয় বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীদের নামে।

 

বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের সংসদ সদস্য হারুনুর রশীদ এসব কথা বলেছেন। বৃহস্পতিবার (২১ অক্টোবর) আসন্ন চাঁপাইনবাবগঞ্জের সদর উপজেলার গোবরাতলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচন উপলক্ষে জনসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। ইউনিয়ন বিএনপির আয়োজনে সদর উপজেলার গোবরাতলা ইউনিয়নের মহিপুর হাট প্রাঙ্গণে এই জনসভা অনুষ্ঠিত হয়। এমপি হারুন বলেন, বর্তমান সরকারের অধীনেই আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা কক্সবাজারের রামুতে হামলা করেছিল। সহিংসতার এসব প্রত্যেকটি ঘটনায় বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীদের দায়ী করা হয়। ষড়যন্ত্র করে হামলা করে আ.লীগ, অথচ দায়ী করা হয় বিএনপি-জামায়াতকে।

 

আওয়ামীলীগকে চোরের দল উল্লেখ করে বিএনপি নেতা হারুনুর রশীদ বলেন, আওয়ামীলীগের জন্মদাতা শেখ মুজিবুর রহমান তার বক্তব্যে বলেছিলেন, সবাই পায় সোনার খনি, আমরা পেয়েছি চোরের খনি। তাই যারা আওয়ামীলীগ করেন, নূন্যতম লজ্জা থাকলে দল ছেড়ে দিন। সরকারের ফাঁদে পা না দিয়ে সবাই সজাগ হয়ে যান। বর্তমান আওয়ামীলীগ সরকার সম্পূর্ণভাবে মিথ্যার উপর দাঁড়িয়ে আছে।

 

ইসলাম ও সংবিধান নিয়ে তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের মন্তব্য নিয়ে এমপি হারুনুর রশীদ বলেন, দায়িত্ব গ্রহণের সময় প্রতিমন্ত্রী মুরাদ সংবিধানের প্রতি আস্থা ও বিশ্বাস রেখে কাজ করার অঙ্গিকার করেছেন৷ অথচ এখন বক্তব্য দিচ্ছেন, সংবিধানে উল্লেখ করা রাষ্ট্রধর্ম ইসলামকে তিনি মানেন তিনি। ইসলামকে মানেন না, তাহলে হিন্দু-খ্রিষ্টান হয়ে যান। বাংলাদেশের মানুষের আবেগ, অনুভূতি, বিশ্বাস নিয়ে খেলবেন না। ভোটবিহীন অবৈধ আওয়ামীলীগ সরকারকে মানুষ বিশ্বাস করে না।

 

আগামীতে অনুষ্ঠিতব্য সকল নির্বাচন সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন করতে নেতাকর্মীদের আহ্বান জানিয়ে তিনি আরও বলেন, কোনভাবেই ভোট চুরি করতে দেয়া হবে না। সবাই সচেতন থাকবেন। ভোটে কোনরকম কারচুপি, অনিয়ম-দূর্নীতি সহ্য করবেন না। জনগণকে সাথে নিয়ে যেকোন মূল্যে এসব প্রতিহত করবেন।

 

ইউনিয়ন বিএনপির সহ-সভাপতি মো. রুহুল আমিনের সভাপতিত্বে জনসভার বিশেষ অতিথি ছিলেন, সদর উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদর থানা বিএনপির সভাপতি মো. তসিকুল ইসলাম তসি এবং সদর থানা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ও চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী মো. তাসেম আলী। জনসভায় গোবরাতলা ইউনিয়নের বিভিন্ন ওয়ার্ড বিএনপির সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর