রাজশাহী চারঘাট উপজেলা প্রশাসনের নাকের ডগায় বেড় জাল

কাজী এনায়েত উল্লাহ
  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৮ এপ্রিল, ২০২২
  • ৪০ বার পঠিত

রাজশাহী চারঘাট উপজেলা প্রশাসনের নাকের ডগায় বেড় জাল

কাজী এনায়েত উল্লাহ, রাজশাহীঃ

রাজশাহীর পদ্মায় প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে অবাধে চলছে বেড় জাল ও কারেন্ট জাল দিয়ে মাছ ধরার মহাউৎসব। এতে প্রতিদিন কোটি কোটি পোনা মাছ নিধন হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, রাজশাহীর পদ্মায় চারঘাট উপজেলার ১ নং ইউসুফপুর ইউনিয়নের ৩ নং ওয়ার্ডের সাহাপুর গ্রামের দক্ষিণে পদ্মানদীতে এক সপ্তাহ ধরে ৫ টি বেড় জাল দিয়ে মাছ ধরা হচ্ছে। মুনাফা লোভীরা বড় বড় মাছ গুলো নিয়ে ছোট মাছ গুলো ফেলে দিয়ে যায়। এতে করে প্রতিদিন কোটি কোটি পোনা ও মাছ নিধন হচ্ছে।

এ বিষয়ে স্থানীয় একাধিক জেলেরা বলেন, এক সপ্তাহ থেকে অবৈধ বেড় জাল দিয়ে মাছ ধরা হলেও নৌ-পুলিশ ঘুষ বানিজ্যের কারনে তাদের কে নিষেধ করছেন না। এমনকি কোন প্রশাসনই তাদেরকে নিষেধ করছে না। এতে করে প্রতিদিন কোটি কোটি ছোট ছোট মাছ পচে নষ্ট হচ্ছে। আর ফাইদা লুটছে মহাজন রফিকুল ইসলাম (ঝটু)। এই দাদন ব্যবসায়ী ঝটু লক্ষ লক্ষ টাকার বেড় জাল কিনে ৫ জন জেলেকে দিয়ে বসে বসে আহার করছেন।

এই প্রভাবশালী ঝটু,
অবৈধভাবে টাকা দিয়ে স্থানীয় প্রশাসনসহ জনপ্রতিনিধিদের কেও বসে নিয়েছেন। স্থানীয় কোন জেলে ঝটুর বিরুদ্ধে টু শব্দ পযন্ত করতে পারে না।

এ বিষয়ে ঝটু এবং নৌপুলিশ কর্তৃপক্ষকে বলেও কোন কাজে আসেনি। উলটো প্রবাভশালী ঝটু বলেন, সব ম্যানেজ করেই মাছ ধরছেন তিনি। তৎক্ষনাৎ
গণমাধ্যম কর্মীর পরিচয় দিলে ক্ষিপ্ত হয়ে যায় প্রভাবশালী ঝটু বাহিনী।

স্থানীয় জনগন এ বিষয়ে চারঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দা সামিরার আসু হস্তক্ষেপ কামনা করছেন। যেন তিনি অভিযান পরিচালনা করে পোনা ও ছোট মাছ নিধন বন্ধ করেন। সেই সাথে দস্যুদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করেন।

পোনামাছ নিধনের ব্যাপারে চারঘাট উপজেলার ১ নং ইউসুফপুর ইউনিয়ন পরিষদের ১ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. হাফিজ, ২ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. রিংকু ও ৩ নং ওয়ার্ডের মেম্বার মো. মাসুদ রানা বলেন, মাছ ধরতে দেখেছি। আমাদের করনীয় কিছুই নাই। তবে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা অতীব জরুরি।

Please Share This Post in Your Social Media

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর