রাজশাহীর বাঘায় চাঁদাবাজ ও হলুদ সাংবাদিক আখতার এর বিরুদ্ধে মানববন্ধন । 

বাঘা(রাজশাহী)প্রতিনিধি। 
  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৯ মে, ২০২২
  • ৪১ বার পঠিত

রাজশাহীর বাঘায় চাঁদাবাজ ও হলুদ সাংবাদিক আখতার এর বিরুদ্ধে মানববন্ধন ।

 

বাঘা(রাজশাহী)প্রতিনিধি।

 

রাজশাহীর বাঘায় চাঁদাবাজ ও হলুদ সাংবাদিক আখতার রহমান এর বিরুদ্ধে মানববন্ধন করেছে ঠিকাদার আব্দুল কুদ্দুস সরকার।

 

রবিবার (২৯ মে ২০২২) সকাল ১১টায় বাঘা বঙ্গবন্ধু চত্ত্বর থেকে উপজেলা পরিষদ পর্যন্ত রাজনৈতিক ব্যক্তিবর্গ, শিক্ষক, ব্যবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার প্রায় এক হাজার মানুষ এ মানববন্ধনে অংশ গ্রহণ করেন । মানববন্ধনের আগে উপস্থিত জনসাধারণ ” হই হই রই রই আখতার সাংবাদিক গেলো কই, আখতারের দুই গালে জুতা মারো তালে তালে ” স্লোগানে অপ সাংবাদিকতা বন্ধের দাবীতে একটি মিছিল করে।

 

বাঘা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আঃ কুদ্দুস সরকার বক্তব্যে বলেন, স্থানীয় চাঁদাবাজ ও হলুদ সাংবাদিক আখতার পত্রিকায় ও এশিয়ান টিভিতে বিভিন্ন ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে নিউজ ও ভিডিও প্রকাশের নাম করে ব্যবসায়ী ও সাধারণ জনগণকে ভয়ভীতি দেখিয়ে বিভিন্ন ভাবে নগদ টাকা চাঁদা দাবী করে আসছে দীর্ঘদিন ধরে। চাঁদাবাজির টাকা দিতে অস্বীকার করলেই তাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা, বানোয়াট ভিত্তিহীন সংবাদ বিভিন্ন পত্রিকা,অনলাইনে প্রকাশ করে মান-সম্মান ধুলোয় মিশিয়ে দিচ্ছে।

 

বাঘা পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি আব্দুল কুদ্দুস সরকার বলেন, আমি ঠিকাদারি ব্যবসা করি। আমার একটি সাইডে রাস্তা প্রসস্তের কাজ চলছে। যা আমি সিডিউল অনুসারে করছি। হঠাৎ আখতার রহমান সেখানে গিয়ে ছবি তোলা সহ আমার কাজে নিয়জিত শ্রমিকদের সাথে খারাপ আচরণ করে। আমি বিষয়টি যানার পর তার সাথে ফোনে কথা বলি। আখতার সরাসরী আমার বাড়ির কাছে এসে এবং কাজের বিভিন্ন ভুল ত্রুটির কথা উল্লেখ করে বলে অনেক বড় কাজ ৫০ হাজার টাকা চাঁদা দাবী করে। কি কারণে টাকা দিতে হবে জানতে চাইলে আখতার বলে, আমি নিউজ করলে মানহানিতো হবেই সেই সাথে কাজেও অনেক ঝামেলা হবে। আমি টাকা দিতে রাজি না হওয়াতে সে খিপ্ত হয়ে আমার বিরুদ্ধে পত্রিকায় ও তার এশিয়ান টিভিতে মিথ্যা নিউজ প্রকাশ করে। আমি এই মানহানীকর মিথ্যা সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানায়। আমরা ঠিকাদার ও বিভিন্ন ব্যবসায়ীরা চাঁদাবাজ ও হলুদ সাংবাদিক আখতার এর সঠিক বিচার চাই।

 

তিনি আরো বলেন, পুঁজি খাটিয়ে বৈধ উপায়ে ব্যবসা করেও চাঁদা দিতে হবে তাদের। বাঘা মেডিকেলের ঠিকাদারের থেকেও চাঁদা নিয়েছে এমন একটি অডিও শুনেছিলাম ফেসবুকে। কোথাও কোন ঘটনা না জেনে না বুঝে ক্যামেরা বের করে ছবি তুলে পরে চাঁদা দাবি করে এমন অসংখ্য অভিযোগ রয়েছে এই আখতার সাংবাদিকের বিরুদ্ধে। এছাড়াও নারী কেলেঙ্কারির অভিযোগও রয়েছে।আখতার রহমানের ক্যামেরাম্যান প্রিন্স একজন মাদকসেবি। সে সাংবাদিক পরিচয় ধারণ করে বিভিন্ন মাদক ব্যবসায়ীর কাছ থেকে মাদক নিয়ে সেবন করে (কিছুদিন আগে ইয়াবা সেবনের ভিডিও রয়েছে সংরক্ষণে)। ইমু ও হ্যাকারদের কাছে মাসোহারা হিসেবে নগদ টাকা গ্রহনের তথ্য যায়। যারা টাকা দিতে চাইনা তাদের বিরুদ্ধে নিউজ করার হুমকিও দেয়।

 

আঃ কুদ্দুস সরকার আরও বলেন, ২০০১ সাল থেকে বার বার নির্বাচিত বাঘ পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতির পদে রয়েছি দীর্ঘ ২২ বছর এবং ২০০৬ সাল হতে বাঘা পৌরসভার প্যানেল মেয়র। ১ ও ৬ নং ওয়ার্ডের কাউন্সির হিসেবে ১২ বছর প্রতিনিধিত্ব করেছেন। চাঁদাবাজ সাংবাদিক আখতার আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা সংবাদ প্রকাশ ও মিথ্যা ভাবে থানায় জিডি করে মান ক্ষুণ্ণ করেছে। তার জিডি করার কথা শুনে সাথে সাথে আমি বাদী হয়ে চাঁদা দাবীর অভিযোগ করেছি থানায়।

 

এ বিষয়ে জানতে এশিয়ান টিভির স্টাফ রিপোর্টার আখতার রহমানের মুঠোফোনে ফোন দিলে তিনি বলেন, আজকের এই মানববন্ধন ও বক্তব্য সম্পুর্ন মিথ্যা ও বানোয়াট। আব্দুল কুদ্দুস সরকার তার অপরাধ আড়াল করতে এমন মিথ্যা নাটক সাজিয়েছে।

 

উক্ত মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন, বাঘা রিপোটার্স ক্লাব ও উপজেলা ট্রাক শ্রমিক সমিতির সভাপতি, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার ও সাংবাদিক সংস্থার সহ-সভাপতি মোঃ মহিদুল ইসলাম, বাঘা পৌর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আঃ আজিজ সরকার,

বাজার কমিটি সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ছাত্রনেতা তারিখ আজিজ চাঁদ, ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সহ সভাপতি সুরুজ্জামান, পৌর যুবলীগের নেতা শামিম সরকার, ছাত্রনেতা এলিট সরকার, মোঃ সেলিম রেজা আ,লীগ যুবলীগ সদস্য, নুর ইসলাম,আলাউদ্দিন,শহিদুল ইসলাম পৌর আওয়ামীলীগের সদস্য সহ হাজার হাজার নারী-পুরুষ ঝাড়ু হাতে মানববন্ধনে অংশগ্রহণ করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

এই ক্যাটাগরীর আরো খবর